এক বৈশ্বয়ীক হেকটিভিস্ট দল “অ্যানোনিমাস” এর কাহিনী

Mitu&Sonchoy

12 April, 2021 | 2 : 07 pm

এক বৈশ্বয়ীক হেকটিভিস্ট দল “অ্যানোনিমাস” এর কাহিনী

 

অ্যানোনিমাস একটি বৈশ্বয়ীক হেকটিভিস্ট দল। ২০০৩ সালে এই দলটি গঠিত হয়। অ্যানোনিমাসের সদস্যরা “অ্যানোন” নামে পরিচিত এবং দলটি সাধারনত কোন ওয়েবসাইটে ডিনাইয়াল অব সার্ভিস (ডস) এর মাধ্যমে হামলা করে থাকে। অ্যানোনিমাস গঠনের মূল উদ্দেশ্য ছিলো সাইবার -নজরদারি বিরোধীতা করা ও সাইবার-সেন্সরশিপের বিরোধীতা করা। তাদের ওয়েবসাইট লিংক https://www.anonymoushackers.net/

 

অ্যানোনিমাসের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত অনেক দেশে সাইবার হামলা চালানোর অভিযোগ রয়েছে,  যেমন, যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল, তিউনিসিয়া,উগান্ডা  এবং আরো অনেক। এছাড়া শিশু পর্নোগ্রাফিক ওয়েবসাইট, কপিরাইট প্রোটেকসন এজেন্সি, দ্য ওয়েস্ট বোরো বেপটিস্ট গির্জা ও বহুজাতিক কম্পানি যেমন,পেপ্যাল,মাস্টার কার্ড, ভিসা এবং সনি তাদের সাইবার হামলার শিকার হয়েছে। অ্যানোনিমাস বিকল্পধারার সংবাদমাধ্যম উইকিলিকসকেও সমর্থন করে। কারণ ২০১০ সালে উইকিলিকস  হাজার হাজার কুটনৈতিক বার্তা প্রকাশ করে দেয়ার পর পেপ্যাল, মাস্টার কার্ড এবং ভিসা উইকিলিকসের  সঙ্গে তাদের লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছিল। এরই প্রতিবাদে পেপ্যালে কয়েকদফা মারাত্মক সাইবার হামলা করেছিল অ্যানোনিমাস। অ্যানোনিমাস সমর্থিত “লালজসেক” ও “অপারেশন এন্টিসেক” যুক্তরাষ্ট্রের সরকারী ওয়েবসাইটের পাশাপাশি সংবাদমাধ্যম, ভিডিও গেম কোম্পানি, মিলিটারি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান, আর্মি অফিসার এবং পুলিস অফিসারের ওয়েবসাইটে সাইবার হামলা চালায়। অ্যানোনিমাসের সমর্থকরা এই হেকটিভিস্ট দলকে “মুক্তিযোদ্ধা”ও “ডিজিটাল রবিনহুড” নামে আখ্যায়িত করে থাকে। কিন্তু সমালোচকরা এদেরকে “সাইবার মাফিয়া”ও “সাইবার সন্ত্রাসী” হিসেবেই চিহ্নিত করে থাকে।

 

 

 

অ্যানোনিমাস ২০১২ সালে বিশ্ববিখ্যাত টাইম সাময়িকীর বিশ্বের প্রভাবশালী ১০০  ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের তালিকায় স্থান পেয়েছিল। ২০০৯ সাল থেকে যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র,আস্ট্রেলিয়া,নেদারল্যান্ডস, স্পেন ও তুরস্ক সরকার অ্যানোনিমাসের সাইবার হামলার সাথে জড়িত সন্দেহে কয়েক ডজন লোককে গ্রেফতার করে। অ্যানোনিমাস তাদের বিবৃতিতে প্রত্যেক ব্যক্তিকে অবিলম্বে মুক্তি ও তাদের আন্দোলনের শহীদ হিসেবে আখ্যায়িত করে। জুলাই ২০১১ সালে “লালজসেক” সদস্য “তপিয়ারি” গ্রেফতার হলে অ্যানোনিমাস তাকে মুক্ত করার জন্য আন্দোলন শুরু করে ও এর নাম দেয় “ফ্রি তপিয়ারি”।

 

আরও পড়ুনঃ The Father of All Hacker- Kevin Mitnick

 

সর্বপ্রথম ডমিট্রি গাজনার নামে এক আমেরিকান ১৯ বছরের যুবককে অ্যানোনিমাসে ডিডস হামলার সাথে জড়িত সন্দেহে জেলে পাঠানো হয়। তার বিরুদ্ধে ২০০৯ সাল থেকে অবৈধ ভাবে কম্পিউটার ব্যবস্থায় অনুপ্রবেশের অভিযোগ আনা হয় এবং ৩৬৬ দিন কারাদন্ড দেওয়া হয়। ১৩ জুন, ২০১১ সালে তুরস্ক সরকার তাদের সরকারি ওয়েবসাইটে ডিডস হামলা চালানোর জন্য ৩২ জনকে গ্রেফতার করে। অ্যানোনিমাসের এই সদ্যদের তুরস্কের ভিন্ন শহর যেমন, ইস্তামবুল ও আঙ্কারা থেকে গ্রেফতার করা হয়। অ্যানোনিমাস যখন অপারেশন অ্যাভেঞ্জ অ্যাস্যাঞ্জ শুরু করে তখন কয়েকটি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ব্যাবস্থা নিতে শুরু করে। জানুয়ারি ২০১১ সালে ব্রিটিশ পুলিশ ১৫-২৬ বছরের পাঁচ জন যুবককে গ্রেফতার করে অ্যানোনিমাসের ডিডস হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে ডিসেম্বর ২০১২ সালে অ্যানোন-অপস এডমিন ২২ বছরের যুবক “ক্রিসটোফার ওয়েদারহেডকে” (নেরদু) অপারেশন পেব্যাক পরিচালনা ও সংগঠিত করার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়। ২০১১ সালের মে মাসে অ্যানোনিমাসের একটি ছোট দল “এইসবিগ্যারে” হ্যাক করে। এই দলের সদস্য “টিফ্লু”, “টপিয়ারি”, “সাবু” ও “ক্যালা” মিলে পরবর্তীতে লালজ সিকিউরিটি নামে একটি হ্যাকার দল গঠন করেন।

 

Find us more here:

Website:

https://www.canbd.org

LinkedIn:

https://www.linkedin.com/company/canbdorg/

YouTube:

https://www.youtube.com/channel/UC5px2nUYgxiletdr9_6771A

Twitter id:

https://twitter.com/canbdorg

Instagram:

https://www.instagram.com/canbdorg/

Facebook page:

https://www.facebook.com/canbd.org

Facebook Group:

https://www.facebook.com/groups/canbd.org/


107 Views


5 1 vote
Article Rating
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
Show Buttons
Hide Buttons
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x