র‍্যানসামওয়্যার থেকে নিরাপদ থাকতে করণীয়

Mohammad Obaidullah

22 October, 2020 | 5 : 30 pm

র‍্যানসামওয়্যার থেকে নিরাপদ থাকতে করণীয়

র‍্যানসামওয়্যার থেকে নিরাপদ থাকতে একটি গল্প বলা যাক, ধরুন, প্রতিদিনের মতই আপনি আপনার ল্যাপটপ দিয়ে টুকটাক কাজ করছিলেন। হঠাৎ দেখলেন আপনার মেইলবক্সে একটি নতুন মেইল এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের একটা প্রতিষ্ঠান থেকে। কৌতুহলি হয়ে মেইলটা ওপেন করে এটাচমেন্ট টা ডাউনলোড করার সাথে সাথেই দেখলেন আপনার ল্যাপটপ আর কাজ করছে না। সব ফাইল এবং কমান্ড করাপ্টেড হয়ে গেছে। শুধুমাত্র একটা পপআপ মেসেজ আসছে যেখানে আপনি দেখতে পাচ্ছেন আপনার কম্পিউটার হ্যাক করা হয়েছে। 

হ্যা, এভাবেই হ্যাকাররা র‍্যানসামওয়্যার ভাইরাসের মাধ্যমে আপনার বা যে কারো পিসির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিতে পারে। বিশেষজ্ঞরা র‍্যানসামওয়্যার কে অবৈধ অর্থ উপার্জনের মাধ্যম হিসেবে আখ্যায়িত  করেছেন। এটি সাধারণত ইমেইল, পপ-আপ ম্যাসেজ, স্প্যাম লিংক বা কোনো ডাউনলোড প্যাকেজের রেসিডুয়াল টেক্সট ফাইলের আকারে কম্পিউটারে প্রবেশ করতে পারে। কম্পিউটারে প্রবেশের মাত্রই এটি লক স্ক্রিণ, পাসওয়ার্ড সহ সকল গুরুত্বপূর্ণ ফাইল এনক্রিপ্ট করে লক করে ফেলে যা হ্যাকারের সেট করা পাসওয়ার্ড ব্যাতীত আর ফেরত পাওয়া সম্ভব হয় না। 

র‍্যানসামওয়্যার বর্তমান বিশ্বের একটি বহুল আলোচিত সমস্যা। এই ভয়াবহ ভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকার জন্য কিছু সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা এই র‍্যানসমওয়ার থেকে বাঁচার জন্য আমাদের করণীয় কি হতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করবো। 

 

র‍্যানসামওয়্যার থেকে বাঁচার জন্য করণীয়ঃ

১) যেকোনো ধরনের ফিশিং বা স্প্যাম লিংকে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকতে হবে। 

২) অপরিচিত কোনো উৎস থেকে আসা মেইলের এটাচমেন্ট ফাইল ওপেন বা ডাউনলোড করার ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। মেইলের উৎস সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে।

৩) সাধারণত আমরা ফ্রী গেইম বা এপ্লিকেশন ব্যবহার করার জন্য অনেক নাম না জানা ওয়েবসাইট থেকেও ক্র্যাক ফাইল বা প্যাচ ফাইল নামিয়ে থাকি। এই ব্যাপারে সর্বোচ্চ সাবধানতা অবলম্বণ করতে হবে। অপরিচিত বা অখ্যাত কুখ্যাত কোনো ওয়েবসাইট থেকে কিছু ডাউনলোড না করাই শ্রেয়। 

৪) র‍্যানসামওয়্যার সম্বলিত মেইল থেকে নিরাপদ থাকার জন্য মেইল সার্ভারের ইনবিল্ট ফিল্টার বা স্ক্যানিং টুল ব্যবহার করা যেতে পারে। 

৫) আমরা সাধারণত ফাইল ট্রান্সফারের জন্য পেনড্রাইভ বা কার্ড রিডার ব্যবহার করে থাকি। যেকোনো ধরণের পোর্টেবল এক্সটারনাল ডিভাইস ব্যবহার করার আগে নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে যে ডিভাইসটি ভাইরাস মুক্ত কিনা। 

৬) কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম ও ব্যবহৃত সফটওয়ার গুলোর নিয়মিত ভাবে আপডেট করে রাখতে হবে। যেকোনো ধরনের আপডেট আসার সাথে সাথেই তা ইন্সটল করে ফেলা ভালো। কারন লেটেস্ট আপডেটের সাথে লেটেস্ট সিকিউরিটি প্যাচ দিয়ে দেওয়া হয় ডিভাইস কে যে কোনো ধরনের ভাইরাস থেকে রক্ষার জন্য। 

এগুলি ছাড়াও কিছু সাধারণ নিয়ম সবারই মেনে চলা উচিত, যেমন এন্টিভাইরাস ব্যবহার করা, পাবলিক ওয়াইফাই ব্যবহারের ক্ষেত্রে ভিপিএন ইউস করা ইত্যাদি। 

 

আমাদের সকল সাইটের লিংকঃ


254 Views


4 8 votes
Article Rating
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
Show Buttons
Hide Buttons
Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x